ব্রিটেনে গরিলা শিশু প্রসব

ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৬
৬৬৫ Views

সদ্য ভূমিষ্ঠ গরিলা শিশুটি এখন ব্রিটেনের ব্রিস্টল শহরবাসীর মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। দেশটির ইতিহাসে প্রথমবারের মতো অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে জন্ম নেয় এই মেয়ে গরিলাটি। শিশুটির মা “কেরা” বেড়ে উঠেছে ব্রিস্টলের একটি সাফারি পার্কে। অন্তঃসত্ত্বা থাকার সময় গরিলাটি উচ্চ রক্ত চাপজনিত রোগে ভোগায় প্রাণ সংকটে পড়ে শিশুটি। এ অবস্থায় শিশুটিকে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে প্রসবের সিদ্ধান্ত নেয় পার্ক কর্তৃপক্ষ।

স্থানীয় গাইনি চিকিৎসক ডেভিড কাহিলের ওপর দায়িত্ব পড়ে অস্ত্রোপচারের। পেশাগত জীবনে অসংখ্য অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তিনি অসংখ্য শিশু ভূমিষ্ঠ করলেও কোন গরিলার শরীরে ছুরি চালানো এটাই প্রথম। মা গরিলার সব ধরণের স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে ১২ই ফেব্রুয়ারি কাহিলের নেতৃত্বে সাফারি পার্কের মেডিকেল বোর্ডের সহায়তায় ৩ ঘণ্টার জটিল এ অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন হয়। মায়ের জঠর থেকে বেরিয়ে আসে ২ পাউন্ড ওজনের ক্ষুদে গরিলাটি।

চিকিৎসক ডেভিড কাহিল বলেন, ‘আমার জন্য এ এক দারুণ অভিজ্ঞতা। মানুষের যে ধরণের অস্ত্রোপচার করা হয় গরিলাটির ক্ষেত্রে তাই করা হয়েছে। তবে মায়ের উচ্চ রক্তচাপ থাকায় এই অস্ত্রোপচার আমাদের জন্য বিশাল চ্যালেঞ্জ ছিলো।’

জন্মের পরপরই শিশুটি শ্বাসকষ্টজনিত রোগে ভোগায় বেশ চিন্তায় পড়ে যান চিকিৎসকরা। তবে সেবা শুশ্রূষার কারণে মা ও শিশু ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছে বলে জানায় চিকিৎসকরা।

এক চিকিৎসক বলেন, ‘জন্মের পর পর মনুষ্য শিশুর নিউমোনিয়া হয়ে থাকে। তবে সঠিক চিকিৎসা দিলে ১ সপ্তাহের মাথাতেই তা সেরে যায়। এই গরিলা শিশুটির ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।’

শিশুটিকে পার্কে ছাড়ার আগে আরো কয়েকমাস পর্যবেক্ষণে রাখা হবে বলে জানায় কর্তৃপক্ষ। দিনের একটি নির্দিষ্ট সময় শিশুটিকে মায়ের কাছে রাখা হলেও বাকি সময় সে সেবিকাদের তত্ত্বাবধানে থাকে। তবে শিশুটিকে কি নামে ডাকা হবে তা নিয়ে এখন ব্যস্ত ব্রিস্টনের সাফারি পার্ক কর্তৃপক্ষ।

এর আগে স্যান ডিয়েগোতেও এভাবে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে জন্ম নেয় আরেকটি গরিলা। বনভূমি ধ্বংস ও মানব পাচারকারীদের কারণে পৃথিবী থেকে দিন দিন গরিলা বিলুপ্ত প্রাণিতে পরিণত হওয়ার কারণে তাদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে গরিলার অস্তিত্ব রক্ষার বিষয়টিকে নিয়ে তৎপর হয়ে ওঠে বিভিন্ন দেশ।

Leave A Comment